শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

নড়াইলে (অবঃ) কলেজ শিক্ষক অরুণ রায় হত্যায় কারো নাম উল্লেখ না করে মামলা
উজ্জ্বল রায়, (নড়াইল জেলা) প্রতিনিধিঃ / ৮৫ বার
আপডেট : শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) খুলনার উপ-পরিচালক নিভা রাণী পাঠকের স্বামী বেসরকারী কলেজের শিক্ষক (অবঃ) অরুণ রায় (৭২)নিহতের ঘ’টনায় নড়াইল সদর থানায় মামলা হয়েছে। শনিবার (২৪ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১১টায় নিহতের স্ত্রী নিভা রাণী পাঠক বাদি হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। আসামি অজ্ঞাত।

তবে এ ঘটনায় বাড়ির ৩ জন পুরনো ও বর্তমান কেয়ার টেকার ব্যনাহাটি গ্রামের বিপুল বিশ্বাস, বিধান রায় ও অরবিন্দু দাস ও ১জন ভ্যানচালক অমরেশ রায় এবং নিহতের এক আত্মীয় রজত পাঠককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। এদিকে ঘ’টনার তিন দিনেও হত্যার কোনো জট খোলেনি।

মামলার বাদি নিভা রাণী পাঠক জানিয়েছেন, কারো নাম উল্লেখ না করেই মামলা হয়েছে। শুনেছি জমিজমা নিয়ে শরিকদের সাথে ঝামেলা ছিল। কাদের সাথে ছিল বা কোনো মামলা ছিল কিনা তাও বলতে পারব না। তিনি আরও বলেন, আমার স্বামী একজন নিরীহ লোক, এলাকায় তার কোন শ’ত্রু থাকতে পারে না। যারাই হ’ত্যা করুক তিনি এর সু’ষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

অরুণ রায়ের পূত্র ইঞ্জিনিয়ার ইন্দ্রোজিত রায় জানান, আমরা বুঝতে পারছি না কিভাবে এমনটি হলো। সিন্দুকের চাবি এখনও পাওয়া যায়নি। পুলিশ সবার উপস্থিতিতে সিন্দুক খুলে দেখা যায় সিন্দুকে রাখা প্রায় ২লাখ টাকা, অলংকার এবং জমির কাগজপত্র সব কিছুই ঠিকঠাক ছিল। এছাড়া বাড়ির কোনো কিছু খোয়া যায়নি।

এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার এস আই শিমুল কুমার দাস বলেন, আটক ৫ জনের কাছ থেকে এখনও পর্যন্ত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। সবাইকে আলাদা আলাদা করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তিনি আরও বলেন, সিন্দুকের চাবিসহ বাড়ির অন্যান্য চাবি ছড়ার মধ্যে ছিল। ছড়াটি এখনও পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, মাউশির উপ-পরিচালক নিভা রাণী পাঠক, তার দুসন্তান প্রকৌশলী ইন্দ্রোজিৎ রায় এবং এক মেয়ে চিকিৎসক ইন্দিরা রায় চাকরির সুবাদে জেলার বাইরে অবস্থান করেন। গ্রামের বাড়ি সদর উপজেলার তুলারামপুর ইউনিয়নের ব্যানাহাটি গ্রামে নিভা রাণীর স্বামী অরুণ রায় একা থাকতেন।

শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সারাদিন অরুণ রায়ের সাথে পরিবারের সদস্যরা মোবাইল ফোনে যোগাযোগ বন্ধ পান। পরে সন্ধ্যার পর নীভা রাণী ও ছেলে ইন্দ্রোজিৎ খুলনা থেকে বাড়িতে এসে ক্লপসি’পল গেট বন্ধ পেয়ে মই বেয়ে দ্বিতল ভবনের দরজা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে দেখেন অরুণ রায়কে হত্যা করা অবঃস্থায় দেখতে পায়।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো সংবাদ