শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০১:১০ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

ফারুক চৌধুরীর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে পদ পদবী হারানো একটি কুচক্রী বগি স্টার বাহিনী
সোহেল রানা তানোর প্রতিনিধি / ২০৪ বার
আপডেট : শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ লালন ও পলন করে তৃণমূল থেকে উঠে আশা জনপ্রিয় এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর সুনাম ও ব্যক্তি ইমেজ ক্ষুর্ণ্ণ করে এমপিকে দলের হাইকমান্ডের কাছে ফাঁসাতে গভীর চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে নিজ দলের আওয়ামী লীগ বিরোধী কিছু (আক্যমা) বগি নেতা বলে অভিযোগ উঠেছে।

এমন ষড়যন্ত্রের অভিযোগ উঠেছে খোদ নিজ দলের কিছু কতিপয় স্বার্থ লোভী পদপদবী হারানো বগি নেতাদের বিরুদ্ধে। এতে করে নিজ দলের নেতা হয়ে এমপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে অপপ্রচার করার বিষয়টি দলের নেতাকর্মী সমর্থকদের মধ্যে ফাঁস হয়ে পড়লে আক্যমা বগি নেতাদের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী সমর্থকরা।

আওয়ামী লীগের নেতা হয়ে আওয়ামী লীগ দলীয় এমপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করায় এলাকাজুড়ে দেখা দিয়েছে চাঞ্চল্যকর অবস্থা ও নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে চাপা ক্ষোভ উত্তেজনা। এছাড়াও যেকোন সময় আক্যমা বগি নেতাদের দিতে পারে গণধাওয়া ও গণপিটুনি বলেও তৃণমূল নেতাকর্মী সমর্থকদের মধ্যে গুঞ্জন বইছে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলছেন, ষড়যন্ত্রকারীরা এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর জনপ্রিয়তা দেখে দিশেহারা হয়ে এইসব বগি আওয়াজ তুলে মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন অপপ্রচার চালাচ্ছে পদপদবী হারানো একটি কুচক্রী বগি সিন্ডিকেট বাহিনী। কিন্তু তারা ভুলে গেলে হবেনা যে এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী কোন পরিবারের সন্তান, সে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা বর্তমান দেশের আইকন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাত ধরে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করেছে।

এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর রাজনীতির মাঠে দ্রুত বিস্তার দেখে তাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী কে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বানিয়েছেন, পরবর্তীতে তাকে দুইবার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করেছেন। এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর তাকে শিল্প প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেন। এছাড়াও রাজনীতিতে আসার আগেই এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী প্রায় দুইযুগ আগেই সিআইপি নির্বাচিত হন। এতে করে সে কি আর দূর্নীতি করবে, সে তো তার বাপ দাদার আমলের রেখে যাওয়া সম্পদের হিসাব করার সময় পাইনা। তাহলে কেন তার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে ষড়যন্ত্রকারীরা। এমপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে তাদের হেতু কি জানতে চায় রাজশাহী জেলা বাসী সহ তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী সমর্থকরা। নয়তো এবার ষড়যন্ত্রকারীদের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিবে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মী সমর্থকরা।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো সংবাদ