সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

মানিকগঞ্জে বিষ খাইয়ে প্রেমিকা হত্যার অভিযোগ, আদালতে মামলা
এ.বি.খান বাবু বার্তা প্রধান / ১১৮ বার
আপডেট : সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০

শারীরিক সম্পর্কের কথা পরিবারকে জানানোয় বিষ খাইয়ে ৯ম শ্রেণির ছাত্রী প্রেমিকাকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে প্রেমিকের বিরুদ্ধে।

গত ৫ সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার পয়লা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ওই ছাত্রী শ্রীধরনগর গ্রামের জাহিনুর শেখের মেয়ে শান্তি (১৪)।

ঘিওর থানা পুলিশ মামলা না নেয়ায় নিহতের পিতা নিরুপায় হয়ে গত ১০ সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সি, আর মামলা নং ১১৬ (ঘি) তিনজনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আদালত মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

নিহতের পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা যায়, ঘিওরের তেরশ্রী কালী নারায়ণ ইনস্টিটিউটে ৯ম শ্রেণিতে পড়–য়া শান্তিকে (১৪) বিদ্যালয়ে যাতায়াতের সময়ে একই গ্রামের গেদু মিয়ার বখাটে পুত্র মোঃ জসিম প্রেম প্রণয়ের প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করত। এক পর্যায়ে জসিম প্রলোভন দেখিয়ে তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে। ঘটনার কিছু দিন পূর্বে সাইফুল ও আজাদের সহযোগিতায় জসিম শান্তিকে ভুল বুঝিয়ে ও বিয়ের প্রলোভন দিয়ে অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে তার সাথে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করে। এরপর থেকে তাকে ব্লাকমেইল করে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক করতে থাকে।

এ কথা শান্তি তার দাদী হামিদা বেগমকে জানায়। এতে জসিম তার ওপর আরও খিপ্তি হয়ে ওঠে। গত ৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে জসিম মোবাইলে শান্তিকে ফোন করে তার বাড়ীর সামনের রাস্তায় দেখা করতে বলে। শান্তি সরলমনে জসিমের সাথে দেখা করতে গেলে সাইফুল ও আজাদের সহযোগিতায় জসিম শান্তির মুখে বিষ ঢেলে দেয়। বিষক্রিয়া শুরু হলে শান্তির গুংরানোর শব্দ পেয়ে দাদী হামিদা বেগম এগিয়ে যায়।

এসময় তিনি শান্তির কাছে জসিম, সাইফুল ও আজাদকে দেখতে পেয়ে জসিমের গেঞ্জি জাপটে ধরলে জসিম তার পরনের গেঞ্জি, তার ব্যবহৃত মোবাইল ও বিষের বোতল ফেলে পালিয়ে যায়। সাইফুল ও আজাদের সহযোগিতায় জসিম তাকে হত্যা করার জন্য বিষ খাওয়ানোর কথা মুমূর্ষ অবস্থায় শান্তি তার দাদী হামিদা বেগমকে বলার পর তার ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসে।

ঘটনার রাতের বেলায় মুমূর্ষ অবস্থায় শান্তিকে প্রথমে ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ২৫০শয্যা বিশিষ্ট মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। রাত সাড়ে ১টার দিকে শান্তি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

ঘটনার সত্যতা জানতে সরেজমিনে গিয়ে এলাকাবাসী ও মামলার বাদী শান্তি পিতার সাথে কথা বলে জানা যায়, ঘিওর থানা পুলিশ উদ্ধারকৃত জসিমের ব্যবহৃত মোবাইল, গেঞ্জি ও বিষের বোতল নিয়ে গেলেও তারা মামলা নিতে রাজি হননি। কোন উপায়ান্তর না পেয়ে শান্তির পিতা শ্রীধরনগর গ্রামের মোঃ মোন্নাফ ওরফে গেদু মিয়ার পুত্র মোঃ জসিম (২২), আঃ ছালামের পুত্র সাইফুল ইসলাম (২২) ও মিনাজ উদ্দিনের পুত্র আজাদকে (২৩) আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-১১৬(ঘিওর)/২০২০।

মামলার বাদী জাহিনুর শেখ বলেন, মামলা তুলে নিতে আসামী ও তার আত্বতিয় স্বজনরা আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের জীবননাশের হুমকি দিচ্ছে। আমাদেরকেও খুন করে লাশ গুম করবে বলে হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে। তাই সরকারের কাছে আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই। অবিলম্বে খুনীদের গ্রেফতার করে তাদের ফাঁসি চাই।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো সংবাদ