বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:০৯ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

বৃক্ষরোপনে এগিয়ে আসুন,একটি গাছ ভবিষ্যতের সম্পদ আ:লীগ নেতা সুজন
সোহেল রানা রাজশাহী জেলা প্রতিনিধি / ১২৮ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বৃক্ষরোপন কর্মসূচির অংশ অনুযায় মাননীয় এম.পি আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী মহোদয়ের পক্ষ থেকে তানোর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পরিবেশ বান্ধব গাছ লাগান
তরুন উদীয়মান আওয়ামীলীগ নেতা, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক তরুণের আস্থার মানুষ জনাব আবুল বাশার সুজন ।

আ:লীগ নেতা সুজন সাংবাদিকদের মাধ্যমে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন

আসলে সব বয়সের মানুষই গাছ লাগাতে পারে। বিশেষ করে এখন যারা কিশোর তরুণ ও শিক্ষার্থী তারা নিজেদের ভবিষ্যতের জন্য কিছু গাছ লাগিয়ে রাখলে আগামীতে তা তাদের বিরাট উপকারে আসবে। এক্ষেত্রে কাঠগাছকে প্রাধান্য দিতে হবে। একটি কাঠগাছ নির্দিষ্ট সময় অতিক্রান্ত হবার পর ১০/ ২০/ ৫০ হাজার টাকা এমনকি এক লক্ষ টাকার সম্পদ হতে পারে। এই প্রজেক্টের উপর ভিত্তি করে পরিশ্রম করে গেলে কোটি টাকা হাতে আসা অসম্ভব কিছু নয়। চেষ্টা করেই দেখুন না…

অনেকেই মনে করেন, গাছ কবে বড় হবে, কবে কী হবে___সুদূরপরাহত একটি বিষয় কিন্তু তারা ভেবে দেখেন না যে জীবন কত দ্রুত ফুরিয়ে যায়‌। ছোট ছোট সম্ভাবনার কাজগুলো আমরা নিছক অবহেলার কারণে এড়িয়ে যাই। এগুলোকে যারা মূল্য দিতে জানে তারা জীবনে অনেক কিছু করতে পারে…

যারা এখন কিশোর তারা ভাবতে পারেন, জায়গা কোথায় পাবো? আসলে নিজের জায়গার প্রয়োজন নেই। আত্মীয়-স্বজনের কাছে অনুরোধ করলে তারা গাছ লাগানোর জন্য জায়গা অবশ্যই দেবেন। কেউ যদি কার্পণ্য করেন তাকে বলা যেতে পারে___যখন গাছ বিক্রি করবো, আপনাকেও টাকা দেবো। এভাবে জায়গার ব্যবস্থা করা আসলে কোন ব্যাপারই নয়…

ছাত্ররা ভবিষ্যতে নিজেদের লাগানো গাছ বিক্রি করে সেই পুঁজি দিয়ে ব্যবসা বাণিজ্য না করলেও অন্তত শিক্ষাজীবনে সংগৃহীত জ্ঞানের বই-পুস্তকগুলো সেই গাছের কাঠ দিয়ে সেলফ বানিয়ে সযত্নে রেখে দিতে পারবেন। এতোটুকু ফায়দা নিঃসন্দেহে হবে। কিংবা নিজের একটি আলমারি অথবা একটি খাট বা কোনো ফার্নিচার তৈরি করে নেওয়া যাবে। মোটকথা উপকার ছাড়া কোনো ক্ষতি নেই গাছ লাগানোতে। চলুন এখনই গাছ লাগাই।

এসময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন তানোর পৌর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ওয়াজির হাসান প্রতাপ সরকার অত্র স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাইদুর রহমান, স্কুলের অন্যান্য শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী বৃন্দরা।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো সংবাদ