শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ১২:৫৪ অপরাহ্ন

  • বাংলা বাংলা English English

বিনামূল্যের সাত কোটি ২০ লাখ ৯ হাজার ৩৭৩টি বই বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার
স্টাফ রিপোর্টার খোরশেদ আলম / ৬১ বার
আপডেট : শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১

সরকার ২০২১ শিক্ষাবর্ষের প্রাথমিক স্তরের (৩য়, ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণি) বাংলা ও ইংরেজি ভার্সনের বিনামূল্যের সাত কোটি ২০ লাখ ৯ হাজার ৩৭৩টি বই বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে । এজন্য সরকারের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩২ কোটি ৪১ লাখ ৫১ হাজার ৭৪৬ টাকা।

এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাব বুধবার (১৯ আগস্ট) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে জানা গিয়েছে। ৯৮টি লটে বিভিন্ন মুদ্রণ ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান উন্মুক্ত দরপত্রে অংশ নিয়ে এসব বই সরবরাহ করবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

দেশ বিদ্যমান প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাওয়ার উপযুক্ত সব শিশুর মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড প্রতি বছর ১ জানুয়ারি প্রাথমিক, ইবতেদায়ী, দাখিল, মাধ্যমিক ও কারিগরি স্তরের সব শিক্ষর্থীদের হাতে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করে আসছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে জাতীয় শিক্ষক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির বাংলা ও ইংরেজি ভার্সনের উল্লেখিত বই মুদ্রণ, বাঁধাই এবং জেলা-উপজেলা ভিত্তিক সরবরাহের লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র আহ্বান করা হয়।

৯টি বিষয়ের পাঠ্যপুস্তক সর্বমোট ৫১০টি গন্তব্যে পাঠানোর ক্ষেত্রে মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলোর মুদ্রণ ও বাঁধাই সক্ষমতা বিবেচনায় এনে শ্রেণি ও বিষয় ভিত্তিক পাঠ্যপুস্তকের সমন্বয়ে উপজেলা ভিত্তিক পাঠ্যপুস্তক বিতরণের কাজটি সম্পন্ন করতে হয়। প্রতিটি শিক্ষার্থীর কাছে তাদের কাঙ্খিত পাঠ্যপুস্তক যথসময়ে বিতরণের স্বার্থে উপজেলা ও জেলা অবস্থান বিবেচনা করে মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহের কাজ সুষ্ঠু ও সহজভাবে করা উদ্দেশ্যে ৯৮টি লটে বিভক্ত করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান নির্ধারণের জন্য আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র আহ্বান করা হলে ৯৮টি লটের জন্য ১০০টি প্রতিষ্ঠান একশ দরপত্র নির্দেশিকা ক্রয় করে এবং ৯১টি প্রতিষ্ঠান ১০২২ দরপত্র দাখিল করে। দরপত্র মূল্যায়নের জন্য ৭ সদস্যেও একটি মূল্যায়ন কমিটি গঠন করা হয় বলে জানা যায়। কমিটি নির্দিষ্ট সময়ে দরপত্রগুলো মূল্যায়ন করে তাদের প্রতিবেদন দাখিল করে। এর মধ্যে এক হাজার ২০টি দরপত্র রেসপন্সিভ হয়, শর্ত পূরণ না হওয়ায় দুটি বাতিল করা হয় জানা গিয়েছে।

সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সঠিক সময়ে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেওয়ার স্বার্থে ক্রয় প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত্র মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় উপস্থাপন করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো সংবাদ